written by | October 11, 2021

ভারতে ফুলের চাষের পরিকল্পনা

ফুল উৎপাদনের ব্যাবসার পরিকল্পনা

মানুষ দীর্ঘদিন ধরেই মনে করে এসেছে যে বাহ্যিক সৌন্দর্য মানসিক বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই তারা সবসময়ই বিভিন্ন অলঙ্কার তাদের শরীরে ধারন করে নিজেদের সৌন্দর্য ব্রিদ্ধির চেষ্টা করেছে। আর এই সকল অলঙ্কারের মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন ও সবচেয়ে বেশি প্রাকৃতিক অলঙ্কার হল পুষ্প বা ফুল। তাই ফুলের চাহিদা চিরকালই মানুশের মধ্যে প্রবল। এ ছাড়াও মন্দিরে এবং বিভিন্ন উতসবের সময়ও মানুষ সুগন্ধি ফুল ব্যাবহার করে এক মনরম পরিবেশ তৈরি করার চেস্টা করে।  আরও অনেক ক্ষেত্রেই সাধারণ মানুষ বিভিন্ন কারনে সুগন্ধি ও গন্ধহীন বিভিন্ন ধরনের ফুল ব্যাবহার করে থাকে। তাই বর্তমানেও বিভিন্ন বাজারে ফুলের চাহিদা প্রচুর। তাই আপনি যখন কোন ব্যাবসা শুরু করার কথা ভাবছেন, তখন আপনি ফুল উৎপাদনের ব্যাবসার কথা ভেবে দেখতে পারেন।

বর্তমানে নতুন উদ্যোক্তাদের মধ্যে একটি নতুন রীতি দেখা গেছে জার কারনে তারা আগের থেকে অনেক বেশি উতপাদনমূলক ব্যাবসার দিকে অগ্রসর হচ্ছে। আর সেই কারনে অন্যান উৎপাদনমূলক ব্যাবসাগুলির মত ফুল উৎপাদনের ব্যাবসাতেও অনেক উদ্যোক্তাকে অবতীর্ন হতে দেখা যাচ্ছে। তাই আপনি ধরে নিতে পারেন যে এই ব্যাবসা এমন একটি ক্ষেত্র যেখানে এত মানুষ তাদের উপার্জনের ব্যাবস্থা করেছে। তবে একথাও আপনাকে ভাবতে হবে যে এই ব্যাবসার সাথে যখন এত বেশি সংখ্যক মানুষ জড়িত, তখন এই ব্যাবসায় আপনা প্রতিদ্বন্ধিও প্রচুর। তাই এই ব্যাবসা শুরু করার জন্য আপ[নার সরবাগ্রে যা প্রয়োজন তা হল একটি নির্ভুল ও নিশ্ছিদ্র পরিকল্পনা।আপনার পরিকল্পনা যত মজবুত হবে তত সহজেই আপনি ব্যাবসায় উন্নতিসাধন করতে পারবেন। তাই আমরা আপনাকে সবচেয়ে বেশি সাধারণ পরিকল্পনাগুলির মধ্যে একটির কথা বলব যা একদম নতুন উদ্যোক্তাদের জন্যেও অনুসরণ করা কঠিন হবে না। তাই আপনি যদি এই ব্যাবসা শুরু করতে ইচ্ছুক হন তবে নিচে প্রদত্ত ব্যাবসায়িক পরিকল্পনাটি ভালো করে পড়ুন এবং সম্পূর্ণ্রুপে বা আংশিকভাবে এই পরিকল্পনা থেকে অনুপ্রানিত হয়ে নিজস্ব ব্যাবসায়িক পরিকল্পনা গথন করুন।

বাজার সমীক্ষা

আপনি যে পণ্যই উৎপাদন করুন না কেন, তার বিক্রয়কার্জ বাজারেই হবে। তাই ব্যাবসা শুরু করার আগে বাজারের একটি সমীক্ষা করে নিলে ব্যাবসায়িক কাজকর্মে অনেক সুবিধা পাওয়া যাবে। আপনি দুই রকমের সমীক্ষা সাধারনভাবে করতে পারেন। প্রথম হল প্রত্যক্ষ সমীক্ষা। এই ক্ষেত্রে আপনি সরাসরি বাজারে গিয়ে বাজারের অন্যান ব্যাবসায়ি ও ক্রেতাদের সাথে কথা বলে নিজের সমীক্ষা সম্পন্ন করতে পারেন। আর অন্য ধরনের সমীক্ষার ক্ষেত্রে আপনি পূর্বে যারা সমীক্ষা করেছে তাদের সংগৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে নিজের সমীক্ষা সম্পন্ন করতে পারেন। দুই ক্ষেত্রেই ফল প্রায় একিরকম আসবে। যদিও পূর্বের সমীক্ষার পর কোন বড় ঘতনা ঘতে থাকলে সেই ঘটনার ব্যাবসায়িক ক্ষেত্রে প্রভাব দ্বিতিয় ক্ষেত্রের সমীক্ষায় দেখা যাবে না। সেই বিশয়গুলির কথা ছিন্তা করতে চাইলে আপনাকে প্রত্যক্ষ সমীক্ষাই করতে হবে।

পন্য নির্ধারন

বাজারের সমীক্ষা শেষ হলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন যে বাজারে কোন ধরনের ফুলের চাহিদা বেশি। এই তথ্যের পাসাপাসি আপনাকে অন্যান অনেক বিশয়ে চিন্তা ভাবনা করতে হবে। উদাহরন্স্বরুপ বলা যেতে পারে, কোন ধরনের ফুল আপনার স্থানীয় অঞ্চলে উৎপাদন করা সহজ হবে বা আপনি কন্ধ্রনের ফুলের উৎপাদনে সক্ষম। এই সমস্ত বিসয়গুলি সম্পর্কে আপনি চিন্তাভাবনা করার পরে বুঝতে পারবেন যে কোন ধরনের ফুল বা কোন প্রজাতির ফুল উৎপাদন করা আপনার জন্য সুবিধাজনক হবে এবং মুনাফা অর্জনে সাহায্য করবে। তাই আপনার বাজারের সমীক্ষা শেষ হলেই আপনাকে ঠিক করে ফেলতে হবে যে কোন ধরনের ফুল আপনি উৎপাদন এবং বিক্রয় করতে ইচ্ছুক।

অর্থসংস্থান

যেকোনো ব্যাবসায়িক কাজকর্মের জন্য অর্থ সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। আপনি যে ধরনের ব্যাবসা শুরু করতে চলেছেন সেই অনুযায়ী আপনার প্রাথমিক বিনিয়োগের পরিমাণও  বাড়বে। আর ফুল উৎপাদনের ব্যাবসায় অন্যান উৎপাদনমূলক ব্যাবসার মতই কিছু প্রাথমিক খরচ আছে যা অন্যান ব্যাবসায় নেই। তাই আপনাকে আগে সেই অর্থের পরিমান নির্দিস্ট করতে হবে। তা হয়ে গেলে আপনাকে এই বিষয়ে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনি সেই পরিমান অর্থের যোগান দিতে পারবেন।

ফুলের উৎপাদনক্ষেত্র সংরক্ষণ

ফুল উৎপাদন করার জন্য আপনার একটি নির্দিস্ট পরিমান জায়গার প্রয়োজন। আপনি একটি উন্মুক্ত বাগানে ফুলের উৎপাদন করতে ইচ্ছুক হয়ে থাকুন অথবা কোন গ্রিনহাউসে, সেই নির্দিস্ট পরিমান জমি বা উতপাদনক্ষেত্র না পেলে আপনি কোনভাবেই ফুলের উৎপাদন কাজ শুরু করতে পারবেন না। তাই আপনার অর্থসংস্থান হয়ে গিয়ে থাকলে আপনার উচিত যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিজের প্রয়োজনীয় জমি ক্রয় করা বা ভাড়া নেওয়া। আপনি এমন কোন জমিও ব্যাবহার করতে পারেন যা আগে থেকেই আপনার অধিনে আছে। 

দক্ষ কর্মচারি সংগ্রহ ও উৎপাদনক্ষেত্র প্রস্তুতকরন

ফুল উৎপাদনের কাজ কঠিন না হলেও এই কাজ করার জন্য আপনার এবং আপনার কর্মচারিদের সেই কাজের প্রক্রিয়া সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা থাকা প্রয়োজন। তাই ব্যাবসা শুরু করার সময়ে দেখে নিতে হবে যে আপনি জাদের কর্মচারি হিসেবে নিয়োগ করছেন, তারা সকলে দক্ষ কি না। আর এইরুপ কিছু দক্ষ কর্মচারি সংগ্রহের পর আপানাকে আরও একটি কাজ করে নিতে হবে। তা হল আপনার কর্মচারিদের সহায়তা নিয়ে উৎপাদনক্ষেত্রের জমির উপর প্রয়োজনীয় পরিবর্তন করে তাকে ফুল চাষের উপযোগী করে তোলা।

কাঁচামালের বাজার ও পন্য বিক্রয়ের বাজার নির্ধারন

উতপাদনমূলক ব্যাবসায় কাঁচামাল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি সঠিক কাঁচামাল জোগাড় করতে না পারলে আপনার উৎপাদিত পন্যের গুনমানও হ্রাস পাবে। আর তা হলে আপনার উৎপাদিত পন্য বাজারে বিক্রয়ের অযোগ্য বলে ধরে নেওয়া হবে। সেইকারনে সঠিক মানের কাঁচামাল পাওয়ার জন্য নির্দিস্ট বাজারে যোগাযোগ করতে হবে। এ ছাড়াও আরও একটি ক্ষেত্রে আপনাকে বাজারের সাহায্য নিতে হবে। তা হল সেই সময়ে যখন আপনি উৎপাদিত পন্য বিক্রয় করার উপায় খোঁজেন। আর সেই কারনে উৎপাদিত পন্যের বাজারেও আপনাকে সঠিক যোগাযোগ রাখতে হবে। তারপরেই আপনি ব্যাবসার শেষ ও সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপে অগ্রসর হতে পারবেন।

উৎপাদন ও বিক্রয়

আপনি যদি এর আগের সবকটি পদক্ষেপ থিক সময়ে নিয়ে থাকেন, তবে আপনার এই ব্যাবসার প্রস্তুতিপর্ব শেষ। এরপর আপনার কাজ হল মূল ব্যাবসায়িক কর্মকান্ড শুরু করা। আর ফুল উৎপাদনের ব্যাবসায় মূল কর্মকান্ড হল ফুলের উৎপাদন করা এবং সেই উৎপাদিত ফুল বিক্রয় করা। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার ফুল উৎপাদনের কাজ শুরু করুন এবং তা বিক্রয়ের ব্যাবস্থা করুন।

এতক্ষন ধরে আমরা ফুল উৎপাদনের ব্যাবসার সবচেয়ে সরল পরিকল্পনা গুলির একটিকে উদাহরন হিসেবে দেখালাম। এই পরিকল্পনাকে অনুসরণ করলে আপনি ব্যাবসার উদ্যোগ নেওয়া থেকে ফুল উৎপাদন করে বিক্রয় করা পর্জন্ত খুব সহজেই অগ্রসর হতে পারবেন। এই পরিকল্পনাতিকে রুপ দেওয়া খুবই সহজ। তাই একদমই নতুন যারা এই ব্যাবসা শুরু করতে ইচ্ছুক তারাও এই পরিকল্পনাকে অনুসরণ করে সাফল্য লাভ করতে পারেন। তবে এই পরিকল্পনাটি বিশ্বজনীন নয়। তাই এই পরিকল্পনার প্রাথমিক ধারনাকে মাথায় রেখে আপনার স্থানীয় পরিস্থিতি অনুযায়ী পরিবর্তন করে নেওয়া সবচেয়ে সুবিধার কাজ হবে। তাই এইপরিকল্পনাটিকে  আগে ভাল করে পর্জবেক্ষন করুন। এই পরিকল্পনায় আপনি এমন অনেক তথ্য পাবেন যা আপনাকে এই ব্যাবসায় সাফল্য লাভে সাহায্য করবে। তাই নিজের পরিকল্পনা প্রস্তুত করার পাশাপাশি এই তথ্যগুলিকেও বিশ্লেসন করুন। এরপর আপনার নিজের ব্যাবসায়িক পরিকল্পনা তৈরির কাজ সমাপ্ত হলে আপনি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে ব্যাবসা শুরু করুন। তাহলে খুব কম সময়ের মধ্যেই এবং খুব সহজেই আপনি এই ব্যাবসায় সাফল্য লাভ করতে পারবেন।

Related Posts

None

হোয়াটসঅ্যাপ বিপণন


None

জিএসটি এফেক্ট কিরণ স্টোর


None

হাসান নিচ্ সাধারণ দোকানে জন্য কোড


None

মুদি দোকান


None

কিরানার দোকান


None

ফল এবং সবজি দোকান


None

বেকারি ব্যবসা


None

হস্তশিল্প ব্যবসা


None

অটোমোবাইল আনুষাঙ্গিক