written by | October 11, 2021

ব্যবসায়ের পরিকল্পনা পরামর্শ

পরামর্শমূলক ব্যবসা (কনসাল্টিং বিজনেস) কি করে শুরু করবেন?

ব্যবসা সম্পর্কিত বা অন্যান্য কোনো বিষয়ে আপনি কি কখনো কোন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন? আর তখন কি আপনার মনে হয়েছে কোনো নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গির প্রয়োজন?এই ঘটনা আমাদের সবার জীবনে অন্তত একবার হলেও ঘটেছে।

অন্যদিকে আপনি কি কখন কোনও বন্ধু বা সহকর্মীকে তাদের কোন সমস্যায় আপনার নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি দিয়েছেন? তাহলে আমরা বলতে পারি আপনি তাদেরকে “পরামর্শ দান” করেছেন।

আপনি যদি আপনার জন্য উপযুক্ত ক্ষেত্রে আপনার শিক্ষা,অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে অন্যদের পরামর্শ দিতে ভালবাসেন তাহলে অনায়াসে নিজের পরামর্শমূলক ব্যবসা শুরু করে আপনি জীবিকা নির্বাহ করতে পারবেন।

চলুন দেখে নেওয়া যাক আপনি কি করে পরামর্শমূলক ব্যবসা শুরু করবেন এবং আপনার এই ব্যবসাকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যাবেন।

আপনি কি কোন বিশেষ ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ? আপনার কি মনে হয় আপনি সেই ব্যাপারে নিরপেক্ষ দৃষ্টিপাত করতে পারবেন? তাহলে নিম্নলিখিত ৬ টি ধাপে আপনি আপনার পরামর্শমূলক ব্যবসা শুরু করতে পারেনঃ

১।। আপনার দক্ষতার মূল্যায়ন করুন এবং উপযুক্ত ক্ষেত্রটি নির্বাচন করুনঃ

সর্বপ্রথমে আপনি ঠাণ্ডা মাথায় ভাবুন আপনার মধ্যে কি কি দক্ষতা আছে যা আপনাকে একজন ভাল পরামর্শদাতা হিসাবে গড়ে তুলতে পারে

মনে রাখবেন পরামর্শদাতারা কিন্তু একটি নির্দিষ্ট ক্ষেত্রেই বিশেষজ্ঞ হয়। আর তাদের সেই ব্যাপারে এতটাই জ্ঞান থাকে যে গ্রাহকরা অর্থের বিনিময়ে তাদের জ্ঞান এবং পরামর্শ লাভ করতে চায়।

  • আপনি কোন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ?
  • আপনি নিজে কি করতে এবং কোন ব্যাপারে কথা বলতে ভালোবাসেন?
  • যদি আপনাকে এক ঘরভর্তি ছাত্রছাত্রীদের সামনে দাঁড় করানো হয় তাহলে আপনি কোন বিষয়ে পড়াবেন?
  • আপনার পরিবার,বন্ধু-বান্ধব,সহকর্মীরা কোন ব্যাপারে আপনার থেকে পরামর্শ গ্রহন করে থাকে?

উপরোক্ত প্রশ্নের উত্তরগুলো আপনি ভেবে এক জায়গায় লিখুন। এটাই হবে আপনার ব্যবসা তৈরির প্রথম পদক্ষেপ।

২।। বাজারের চাহিদা বিশ্লেষণ করুনঃ

এখন যখন আপনি জানেন আপনি কোন পরিসরে কাজ করতে চান,তখন অন্যতম কাজ হল আপনি যেই সমস্ত গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে চান সেই বাজারকে বিশ্লেষণ করা। নিজেকে পরামর্শদাতা হিসাবে চিহ্নিত করার জন্য  আপনাকে আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকদের  প্রয়োজনীয়তা ও অসুবিধাগুলো বুঝতে হবে এবং  নিজস্ব দক্ষতার সাথে  কীভাবে সমধান করবেন সেই ব্যাপারে ওয়াকিবহাল থাকতে হবে। 

পরামর্শদাতা হিসেবে আপনি কি করে আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকদের পরিষেবা দেবেন সেই ব্যাপারেও আপনার ধারনা থাকা খুবই প্রয়োজন।একটা স্পষ্ট ধারনাই আপনার ব্যবসাকে অনেকটা দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।

৩।। নিজের ব্র্যান্ড, ওয়েবসাইট গড়ে তুলুনঃ

পরামর্শদাতা হিসাবে ব্যবসা শুরু করার পরবর্তী পদক্ষেপটি হল আপনার ব্যবসায়ের বাহ্যিক উপাদানগুলির দিকে লক্ষ্য করা। যেমন আপনার ওয়েবসাইট, ব্র্যান্ডিং এবং আপনি গ্রাহকদের কি কি পরিষেবা দেবেন। এই সকল দিকগুলিও সম্ভাব্য গ্রাহকদের আপনাকে সনাক্ত করতে এবং প্রতিযোগীদের মধ্যে থেকে আপনার ব্যবসাকে আলাদা করে দাঁড় করাতে সহায়তা করবে। এবার আপনি আপনার পছন্দ মত ডোমেন নাম খুঁজে নিয়ে আপনার ওয়েবসাইট চালু করতে পারেনএই পদক্ষেপের অন্য গুরুত্বপূর্ণ দিক হল গ্রাহকদের সাথে আপনি কিভাবে কাজ করে থাকেন এবং আপনার পরামর্শের জন্য কত পারিশ্রমিক ধার্য করবেন সেই ব্যাপারে একটা ধারণা দেওয়া। তবে এই সকল ব্যাপারে বিস্তারিত কোন তথ্য দেওয়ার জন্য আপনি সকলকে ফোন করার অনুরোধও করতে পারেন।

৪।। আপনার ব্যবসা শুরু করুনঃ

এখন যখন আপনি জানেন যে আপনার দক্ষতাগুলি কী, কীভাবে আপনার দক্ষতা অন্যদের সহায়তা করতে পারে এবং সম্ভাব্য গ্রাহকরা কীভাবে আপনার সম্পর্কে জানতে পারবে এবং আপনার খোঁজ পাবে,তখন আপনার ব্যবসা শুরু করার এটাই সবথেকে উপযুক্ত সময়।তবে একটা ব্যবসা শুরু করা কোন দোকানের “বন্ধ” বোর্ড ঘুরিয়েখোলা” বোর্ড করে দেওয়ার মত সহজ নয়

প্রথমেই আপনার ব্যবসাকে আইনিকরন করে তুলুনযেকোনো আইনিকরন ব্যবসা গ্রাহকদের সেই ব্যবসার প্রতি বিশ্বাসযোগ্যতা কে অনেকটাই বাড়িয়ে তোলে 

এরপরে, ব্যবসা পরিচালনা করতে এবং গ্রাহকদের সাথে সংযোগ স্থাপন করার জন্য আপনার কী কী সরঞ্জামের প্রয়োজন হতে পারে সে সম্পর্কে চিন্তাভাবনা করুন ।যেমন লিঙ্কডইনের সদস্যতা গ্রহনের মাধ্যমে আপনি সম্ভাব্য গ্রাহকদের খোঁজ পেতে পারেন।এবং আপনার গ্রাহকদের সাথে সাক্ষাৎ এর জন্য আপনি জুম বা স্কাইপের মতো অন্য অনেক ভিডিও কনফারেন্সিং সফ্টওয়্যার ডাউনলোড করতে পারেন। 

পরবর্তী ধাপে আপনার ব্যবসার জন্য ব্যাংক এ একটি কারেন্ট অ্যাকাউন্ট খোলা খুবই প্রয়োজন।যার ফলে আপনি আপনার ব্যক্তিগত এবং ব্যবসার হিসেব আলাদা করে রাখতে পারবেন।এরপর আপনার ব্র্যান্ডের নাম,ফোন নম্বর,ইমেল এবং আর অনান্য প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে কিছু সংখ্যক বিজনেস কার্ড ছাপিয়ে রাখুন।

৫।। সম্ভাব্য গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে ব্যবসার প্রচার করুনঃ

এবার যখন ব্যবসা শুরু হয়েছে তখন তাকে কি করে বড় করা যেতে পারে  তা দেখে নেওয়া যাক।

পরামর্শমূলক ব্যবসায় গ্রাহকই মূল। গাড়ি,বাড়ি বা কোন সফটওয়্যার বিক্রির থেকে এই ব্যবসা অনেকটাই আলাদা।অনেক সময় আপনাকে হয়ত এমন গ্রাহকদের সাথে কাজ করতে হবে যারা নিজেরাই জানে না তাদের পরামর্শ দরকার।

নিম্নলিখিত কয়েকটি উপায়ে  পরামর্শমূলক ব্যবসার প্রচার করা সম্ভবঃ

  • ব্লগিং
  • ওয়েবিনারস
  • পোডকাস্টিং
  • শেখানোর মাধ্যমে
  • সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করে
  • ডিজিটাল বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে
  • সুপারিশের মাধ্যমে

উপরোক্ত পদ্ধতিগুলোর মাধ্যমে আপনার পরিচিতি বাড়লেও সেইখান থেকে গ্রাহক আসার সম্ভাবনা প্রথম দিকে একটু কমই থাকবে।তাই সরাসরি সম্ভাব্য গ্রাহকদের আকৃষ্ট করার জন্যও আপনাকে সময় এবং অর্থ ব্যয় করতে হবে।

সরাসরি বিপণন এবং সচেতন বিপণনের একটি সুন্দর মেলবন্ধনই  আপনার ব্যবসাকে সফল করতে সহয়তা করবে।

৬।। সুসংহত থাকুন এবং ধারাবাহিকতা বজায় রাখুনঃ

আপনার পরামর্শ ব্যবসায়ের বৃদ্ধিলাভের সাথে সাথে আপনি নিজেকে সুসংহত রাখুন এবং আপনার পরিষেবার ধারাবাহিকতা বজায় রাখুন। পূর্ববর্তী গ্রাহকদের থেকে পাওয়া সুপারিশ ই আপনাকে সম্ভাব্য গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার  সর্বোত্তম উপায় হতে পারে। আজ যখন সবকিছুই হাতের মুঠোতে। এক ক্লিকে যখন আমরা আমাদের সকল অজানার খোঁজ পেয়ে যায় তখনও নিজের পরিচিত মানুষ কিছু সুপারিশ করলে আজও আমরা ভরসা করে সেইদিকেই যায়।তাই আপনি যখন কোন গ্রাহককে আপনার পরিষেবা দিয়ে সন্তুষ্ট করতে পারবেন তখন তাদেরকে আপনার সুপারিশ করার কথা বলতে পিছপা হবেন না।

মাসের মধ্যে একবার বা দুইবার ,আপনার পরামর্শমূলক ব্যবসাটির বিশ্লেষণ করুন। আপনার গ্রাহকদের তালিকা , সফ্টওয়্যার সরঞ্জামগুলি এবং অন্যান্য ব্যবসায়িক দিকগুলি অনুশীলন করুন, কি কি কাজ হচ্ছে এবং কি কি হচ্ছে না তা বিশ্লেষণ করুন।সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন।

লক্ষ্য করে দেখুন কোন কোন জায়গায় আপনি কম ব্যয় করতে পারবেন।সেইসব দিক দেখে নিয়ে নিজের লাভের পরিমান বাড়ানোর চেষ্টা করুন।আর সবশেষে বাজারের পরিবর্তনগুলোর দিকে নজর রাখুন।দিনের একটা নির্দিষ্ট সময় এইসকল ব্যাপারে জানার জন্য রাখুন।শেখার বা জানার কোন শেষ নেই। তাই নিজের জ্ঞানের পরিসর বাড়ানোর জন্য উপযুক্ত অর্থ আর সময় ব্যয় করতে কখনো পিছিয়ে আসবেন না। আর এইভাবেই আপনি নিজেকে আপগ্রেড করতে থাকুন যাতে আপনি আপনার গ্রাহকদের আর ভালো পরিষেবা দিয়ে যেতে পারেন।

আপনি কি পরামর্শমূলক ব্যবসা (কনসাল্টিং বিজনেস)শুরু করার জন্য প্রস্তুত?

নতুন কিছু শুরু করার আগে আমাদের অনেক উন্মাদনা থাকে। কিন্তু পরামর্শমূলক ব্যবসা (কনসাল্টিং বিজনেস) শুরু করার ক্ষেত্রে আপনাকে আপনার প্রতিটা পদক্ষেপ সম্পর্কে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল থাকতে হবে। আর এই অনুচ্ছেদকে আপনার ব্যবসা তৈরির পথপ্রদর্শক হিসেবে আপনার সাথে রাখতে পারেন। কিন্তু সবশেষে সঠিক চিন্তাধারা,স্পষ্ট পরিকল্পনা আর গ্রাহকদের সাথে আপনার ব্যবহার ,কাজের প্রতি আপনার ভালোবাসাই পারবে আপনার পরামর্শমূলক ব্যবসাকে (কনসাল্টিং বিজনেসকে)উন্নতির শিখরে পৌঁছে দিতে।

 

 

 

 

 

Related Posts

None

হোয়াটসঅ্যাপ বিপণন


None

জিএসটি এফেক্ট কিরণ স্টোর


None

হাসান নিচ্ সাধারণ দোকানে জন্য কোড


None

মুদি দোকান


None

কিরানার দোকান


None

ফল এবং সবজি দোকান


None

বেকারি ব্যবসা


None

হস্তশিল্প ব্যবসা


None

অটোমোবাইল আনুষাঙ্গিক